সাংবাদিক নিয়োগঃ
আজকের নোয়াখালী শিক্ষানবীশ সাংবাদিক নিয়োগ - আগ্রহীরা সিভি পাঠিয়ে দিন আমাদের মেইলঃ ajkernoakhali2019@gmail.com এ
বর্তমান সময়ের পেক্ষাপটে ত্রাণ…..

বর্তমান সময়ের পেক্ষাপটে ত্রাণ…..


বর্তমানে আলোচিত এবং সমলোচিত শব্দটি হলো ত্রাণ। ত্রাণ এর যে কনসেপ্ট তথা ধারণা সেটা আমরা অনেকেই বুঝিনা। আর এখানেই বেঁধেছে যতো বিপত্তি। ত্রাণ দিতে হয় মূলত দুই কারনে।
.
.

পথম কারন:সেই সব অঞ্চলে যেখানে প্রাকৃতিক দুর্যোগ যেমন ঝড়, বন‍্যা কিংবা ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে। স্বাভাবিক যোগাযোগ ব‍্যবস্থা ভেঙ্গে পড়েছে। খাদ্যবস্তু, ঔষধ ও অন‍‍্যান‍্য পন্য পরবরাহ বিঘ্নিত হচ্ছে। অর্থাৎ মানুষ অতিকষ্টে ও অভাবে জীবন ধারন করছে। এমতাবস্থায় মানুষের জীবন রক্ষার তাগিদে রাষ্ট্র ও নানা বেসরকারি সংগঠন এমনকি ব‍্যক্তিগত উদ‍্যোগে ত্রাণ বিতরণ করা হয়ে থাকে।

 

দ্বিতীয় কারণ:

যদি কোন জনপদ কিংবা রাষ্ট্রে মহামারী অথবা মনুষ‍্য সৃষ্ট কোন দুর্যোগ যেমন যুদ্ধ সংঘটিত হয়, যেখানে রাষ্ট্র ব‍্যবস্থা এবং একই সামাজিক অবস্থান ধ্বংসপ্রাপ্ত হয়ে থাকে। অর্থাৎ সমাজের সকল মানুষ এক কাতারে এসে দাঁড়িয়েছে। ধনী ও গরীবের মধ‍্যকার ব‍্যবধান আর বর্তমান নেই। এই সংকট কালিন মূহুর্তে ত্রাণ বিতরণ একান্ত প্রয়োজন।

 

কিন্তু বতর্মান প্রেক্ষাপট:

বাংলাদেশের বতর্মান প্রেক্ষাপটে আমরা কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগের স্বীকার হইনি। আমরা কোন প্রকার যুদ্ধেও লিপ্ত নই। তবে হ‍্যাঁ, আমরা ভয়ংকর মহামারী দ্বারা আক্রান্ত। কিন্তু এতে করে আমাদের ধনী শ্রেণি এখনো পর্যন্ত তাদের ধন সম্পদ হারিয়ে গরীবদের সাথে রাস্তায় এসে এক কাতারে দাঁড়ানোর অবস্থায় আসেনি।

তাহলে এখন ত্রাণ বিতরণের নামে আজকে এক শ্রেণির খ‍্যাতি অন্বেষক (Fame Seeker) অসহায় মানুষের অসহায়ত্ত্বের সুযোগকে কাজে লাগিয়ে এক ঘৃন‍্যতম নাটক মঞ্চস্থ করে চলছে। ত্রাণের থলেটি হাতে ধরিয়ে দিয়ে ছবি তুলার যে নোংরা প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে তা জাতি হিসেবে আমাদের সকলের জন্য কলঙ্ক জনক।

উপুর্যপুরি এর সাথে যোগ হয়েছে একদল হিংস্র ক্ষুদার্ত লোভী হায়েনাদের ত্রাণের ‘খাদ‍্য লুট ও চুরি’ করার লীলাখেলা।

আমার ক্ষুদ্র জ্ঞানে মনে হচ্ছে ত্রাণ দেয়ার নামে এই প্রহসন অনতিবিলম্বে বন্ধ করা আবশ‍্যক। বিকল্প হিসেবে দরিদ্র ও অসহায় মানুষদের নগত অর্থ প্রদান করা সমীচিন। মানুষ অর্থ পেলে তাদের প্রয়োজন মাফিক খাদ্য দ্রব‍্য ও অন‍্যান‍্য আনুসঙ্গিক পন‍্য কিনে নিতে পারবে। একইসঙ্গে এই ছোটলোকদের লোক দেখানো প্রহসন এবং চুরির মহৌৎসব বন্ধ হবে।

এখন প্রশ্ন হলো আপনি এতো বিপুল সংখ্যক জনগোষ্ঠীকে নগত অর্থ প্রদান কি করে করবেন ???

এর জন‍্য রাষ্ট্রের উচিৎ অনলাইন পদ্ধতি প্রয়োগ করা। যেহেতু সরকারি হিসেবে দেশে এই মূহুর্তে দশ কোটি মানুষ মোবাইল ফোন সেবা গ্রহন করে থাকে, তাই মোবাইল এ‍্যাপস (বিকাশ, রকেট, শিউর ক্যাশ, নগদ) ব‍্যবহার করে টাকা প্রেরন সহজেই করা যাবে বলে মনে করি।

 


লেখক:মাকসুদ পিয়াস
নোয়াখালী, কবিরহাট

 

আমাদের ফেইজবুক পেইজ আজকের নোয়াখালী’তে লাইক দিয়ে সাথেই থাকুন….

 

শেয়ার করুন