সাংবাদিক নিয়োগঃ
আজকের নোয়াখালী শিক্ষানবীশ সাংবাদিক নিয়োগ - আগ্রহীরা সিভি পাঠিয়ে দিন আমাদের মেইলঃ ajkernoakhali2019@gmail.com এ
নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রী উত্ত্যক্ত করার প্রতিবাদের জের, হামলায় ৫ শিক্ষার্থী আহত

নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রী উত্ত্যক্ত করার প্রতিবাদের জের, হামলায় ৫ শিক্ষার্থী আহত

নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রী উত্ত্যক্ত করার প্রতিবাদের জের ধরে দুই ছাত্রকে মারধর করেছে বহিরাগত একদল যুবক। আজ রোববার সন্ধ্যায় এ ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বহিরাগতদের পাল্টাপাল্টি ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ সময় ছাত্ররা দুটি বাড়িতে ভাঙচুর করেন। অন্যদিকে বহিরাগতরা বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি বাস ভাঙচুর করে। এসব ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঁচ শিক্ষার্থী আহত হয়েছেন।

বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী, স্থানীয় লোকজন ও পুলিশের ভাষ্য অনুযায়ী, আজ সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের কাছে দুই ছাত্রকে রড দিয়ে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে গুরুতর আহত করে বহিরাগত একদল যুবক। আহত দুই শিক্ষার্থী হলেন কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের মো. আরফান ও মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের মো. রাহি।

এ ঘটনার পর বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। তাঁরা ক্যাম্পাসের সামনের সড়কে একটি ইজিবাইক ও একটি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করে। হামলার ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগ তুলে মো. তুষার ও মো. রুমেল নামের দুই যুবকের বাড়ি ও দোকানে ভাঙচুর করা হয়। এতে স্থানীয় লোকজন উত্তেজিত হয়ে পড়ে। পরে শিক্ষার্থীরা ফেরার পথে পেছন থেকে স্থানীয় লোকজন ধাওয়া করে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সন্ধ্যা সাতটার দিকে বহিরাগত শতাধিক লোক লাঠিসোঁটা নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের সীমানাপ্রাচীরের উত্তর-পূর্ব কোণের গেট দিয়ে ভেতরে ঢোকার চেষ্টা করে। এ সময় সুধারাম থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে কয়েকটি ফাঁকা গুলি ছোড়ে ও ধাওয়া দিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এরপর পুলিশ ছাত্রদের ক্যাম্পাসের ভেতর ঢুকিয়ে দিয়ে সামনের রাস্তায় অবস্থান নেয়।

শিক্ষার্থীরা জানিয়েছেন, আজ রাত আটটার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি বাস বাইরে থেকে ক্যাম্পাসে ঢোকার পথে তাতে ভাঙচুর চালায় একদল বহিরাগত। হামলায় মো. নাদিম ও মো. প্রোমেলসহ তিন ছাত্র আহত হন। পরে পুলিশ গেলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়।

একাধিক শিক্ষার্থী জানিয়েছেন, দুদিন আগে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের ভেতরে এক ছাত্রীকে উত্ত্যক্ত করা নিয়ে কয়েকজন শিক্ষার্থী স্থানীয় যুবক তুষারকে মারধর করেন। ওই হামলার জের ধরে আজ সন্ধ্যায় তুষারের নেতৃত্বে একদল বহিরাগত যুবক আরফান ও রাহির ওপর হামলা চালায়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর মাসুম মিয়া প্রথম আলোকে বলেন, আগের একটি ঘটনার জেরে বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই ছাত্রকে আজ সন্ধ্যায় বহিরাগত যুবকেরা মারধর করে। এ নিয়ে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। পরে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

সুধারাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেন বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই শিক্ষার্থীর সঙ্গে এলাকার লোকজনের ভুল বোঝাবুঝি নিয়ে পাল্টাপাল্টি ধাওয়া হয়। দুটি বাড়ি ভাঙচুরের কথা শোনা গেছে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত। ক্যাম্পাসের বাইরে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

শেয়ার করুন