সাংবাদিক নিয়োগঃ
আজকের নোয়াখালী শিক্ষানবীশ সাংবাদিক নিয়োগ - আগ্রহীরা সিভি পাঠিয়ে দিন আমাদের মেইলঃ ajkernoakhali2019@gmail.com এ
নোবিপ্রবিতে আইসিই বিভাগ চেয়ারম্যান’র অব্যাহতি চেয়ে ১০ দফা দাবি!

নোবিপ্রবিতে আইসিই বিভাগ চেয়ারম্যান’র অব্যাহতি চেয়ে ১০ দফা দাবি!

নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (নোবিপ্রবি) ইনফরমেশন এন্ড কমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং (আইসিই) বিভাগের চেয়ারম্যান ড. আশিকুর রহমান খান এর বিরুদ্ধে অদ্য পদ থেকে অব্যাহতি চেয়ে আন্দোলন করেছে শিক্ষার্থীরা। একই বিভাগের চলতি ব্যাচগুলোর প্রায় সব শিক্ষার্থীর উপস্থিতিতে আন্দোলনকারীরা এই শিক্ষকের অব্যাহতি চেয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টরের কাছে দশ দফা দাবী সম্বলিত স্মারকলিপি জমা দেন।
দশ দফা দাবি সমুহ:-

১.ব্যাপক অনিয়ম ও অযোগ্যতার কারনে প্রশাসনিক ও দাপ্তরিক কাজে অচল অবস্থা।
২.LICT, একটি গভর্নমেন্ট প্রজেক্ট, যেটার বিরুদ্ধে চেয়ারম্যান এর অনিহা প্রকাশ।
৩. ধর্মীয় গোড়ামীর কারনে কোন প্রকার সংস্কৃতি অনুষ্ঠানের আয়োজন প্রদান করা হয়না।
৪. সংখ্যা গরিষ্ঠ ধর্মীয় উৎসব থাকা স্বত্ত্বেও জোরপূর্বক ক্লাস এবং ক্লাস টেস্ট নেওয়া হয়।
৫. অফিস স্টাফ থেকে শুরু করে বিভাগের ছাত্র-ছাত্রীদের সাথে ক্ষমতার অপব্যবহার করা হয়।
৬. বিশ্ববিদ্যালয় কতৃক আয়োজিত কোন ক্রিড়া প্রতিযোগীতায় অংশগ্রহনকারী প্রতিযোগীদের ক্লাস টেস্ট বা ক্লাসের অনুপস্থিতির জন্য কোন ছাড় দেয়া হয়না।
৭.জাতীয় প্রোগ্রামিং প্রতিযোগীতায় অংশগ্রহনকারী প্রতিযোগীদের ন্যায্য কোন আর্থিক সহযোগিতা করা হয়না। বরং নিরুৎসাহিত করা হয়।
৮.ইন্ডাস্ট্রিয়াল ট্যুরের সময় কোন প্রকার দাপ্তরিক ও আর্থিক সহযোগিতা করা হয়না।
৯. চেয়ারম্যানের অনুমতি ছাড়া ছাত্র-ছাত্রীদের একটি ক্লাব গঠম ও উদ্ভোধন করায় আয়োজনকারীদের অপদস্ত করা হয়েছে।
১০. টেকনোলজিক্যাল ও ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপার্টমেন্ট হওয়া স্বত্ত্বেও কোন ওয়াই-ফাই সুবিধা প্রদান করা হয়নি। ল্যাবরুম থাকা স্বত্ত্বেও যথাযথভাবে ব্যবহার করতে দেয়া হয়নি।

উল্লেখিত বিভাগের অভিযুক্ত চেয়ারম্যান ড. আশিকুর রহমান খান তার বিরুদ্ধে আন্দোলন প্রসঙ্গে তিনি পুরোপুরি অবগত নন বলে জানান। তিনি বলেন, আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা তাকে কিছু বলেননি এবং শিক্ষার্থীরা না চাইলে তিনি বিভাগের চেয়ারম্যান পদ থেকে সরে আসবেন।
পরে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন তাদের কাছ থেকে ৫ নভেম্বর পর্যন্ত সময় নিয়েছেন। ততদিন আইসিই বিভাগের সকল ক্লাস-পরীক্ষা চলমান নিয়মে চলবে। ৫ তারিখের পর প্রশাসন তাদের দাবি না মানলে সর্বসম্মতিক্রমে তারা আবার দাবি আদায়ে মাঠে নামবেন। এসময় তারা অনশন করার ঘোষনা দেন।

Sajjad zobayer
নোবিপ্রবি প্রতিনিধি।

শেয়ার করুন