সাংবাদিক নিয়োগঃ
আজকের নোয়াখালী শিক্ষানবীশ সাংবাদিক নিয়োগ - আগ্রহীরা সিভি পাঠিয়ে দিন আমাদের মেইলঃ ajkernoakhali2019@gmail.com এ
সৌম্যর কাছে ‘মূল্যহীন’ এই ইনিংস

সৌম্যর কাছে ‘মূল্যহীন’ এই ইনিংস

চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে রান পাননি। অস্ট্রেলিয়া সিরিজেও খুঁজে পাননি ছন্দ। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টেস্ট-ওয়ানডেতেও তাঁর ব্যাট কথা বলেনি। সৌম্য সরকার নিজেকে খুঁজে পেলেন আজ ব্লুমফন্টেইনে প্রোটিয়াদের বিপক্ষে দুই ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথমটিতে। কিন্তু বিফলে গেছে তাঁর চেষ্টা। ৩১ বলে ৪৭ রানের দারুণ ইনিংসটা তাই সৌম্যর কাছে মূল্যহীন!

তাঁর ব্যাটে চড়েই ৯ ওভারে বাংলাদেশ করতে পেরেছে ২ উইকেটে ৯২। ওভার প্রতি ১০-এর ওপর রান তোলা বাংলাদেশের জন্য বাকি পথটা পাড়ি দেওয়া কঠিন কিছু ছিল না। কিন্তু ৯.১ ওভারে সৌম্য আউট হতেই ফিকে হতে শুরু করে জয়ের আশা। দক্ষিণ আফ্রিকাকে বাংলাদেশ যা একটু জবাব দিয়েছে বাঁহাতি ওপেনারের ইনিংসে ভর করেই। শেষ পর্যন্ত ম্যাচটা হেরে যাওয়ায় নিজের ইনিংস নিয়ে অতৃপ্তি থেকে গেছে সৌম্যর, ‘ইনিংসটা যদি লম্বা করতে পারতাম, দল যদি জিতত তখন এটা নিয়ে বলতে পারতাম। আমি শেষ করতে পারিনি, দল জেতেনি। এই ইনিংসের মূল্য নেই।’
প্রথম ৯ ওভার হাড্ডাহাড্ডি লড়াই করা বাংলাদেশ কেন ইনিংসের বাকি পথটা একই ছন্দে এগোতে পারেনি, সেটির ব্যাখ্যায় সৌম্য বললেন, ‘শেষ ১০ ওভারে ৩ থেকে ৬ নম্বরের (ব্যাটসম্যান) কেউ যদি বড় রান করতে পারত, তাহলে আমাদের জন্য সহজ হতো। তখন একজন সেট ব্যাটসম্যান থাকত। অনেক কিছু হতে পারত।’
পুরো দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে এই একটা ম্যাচে বাংলাদেশের পারফরম্যান্সে লড়াইয়ের ছাপ দেখা গেছে। পরশু পচেফস্ট্রুমে সিরিজের শেষ টি-টোয়েন্টিতে নামার আগে যেটি আত্মবিশ্বাসী করছে সৌম্যকে, ‘আজ প্রায় ২০০-এর কাছাকাছি রান করেছে ওরা। আমরাও ১৭৫ করেছি। অবশ্যই আমাদের সামর্থ্য আছে। মাঝে যদি একটা ব্যাটসম্যান ভালো করত, আমরা সহজেই জিতে যেতাম। এখান থেকে আত্মবিশ্বাস বেড়েছে যে আমরা ২০০ করতে পারি।’

শেয়ার করুন