সাংবাদিক নিয়োগঃ
আজকের নোয়াখালী শিক্ষানবীশ সাংবাদিক নিয়োগ - আগ্রহীরা সিভি পাঠিয়ে দিন আমাদের মেইলঃ ajkernoakhali2019@gmail.com এ
নোয়াখালীতে ধান চাষে কৃষকের লোকসানের শঙ্কা!

নোয়াখালীতে ধান চাষে কৃষকের লোকসানের শঙ্কা!

Taposh Sharma  

লেখকঃ তাপস শর্মা….

নোয়াখালী উপকুলীয় অঞ্চলে ঘুর্ণীঝড় বুলবুল এর আঘাতে আমন ধানের ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে। টানা বৃষ্টির কারনে ধানের আশানুরূপ ফলন হয়নি, ফলে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে কৃষক।

কবিরহাট উপজেলার শুক্লামদ্দী গ্রামের প্রায় সবকটি ধানের জমি পানিতে তলিয়ে গেছে। স্থানীয় কৃষকরা বলছেন, ঘূর্ণীঝড় বুলবুল এর কারনে পানির নিছে চলে গেছে ধানের ছড়া। যেখানে আগে বদলা দিয়ে ধান কাটতে খরচ হতো ৩০০ থেকে ৩৫০, এখন ৪০০ থেকে ৪৫০। আগে জমিতে ধান নেওয়া হত, পানির কারনে এখন বাড়িতে নিয়ে আসতে হবে এতে বাড়তি খরচ ও কষ্ট পোহাতে হবে। এদিকে খড় বিক্রি করে কিছু টাকা লাভ হত এখন পানিতে তাও নষ্ট। কৃষকরা ধান মাঠে খলা বা চতলা তৈরি করে ধান শুকাতো। এখন জমিতে পানি ও কাদামাটির কারনে ধান শুকাতেও কষ্ট পোহাতে হবে। অনেকে ধান কাটার জন্য জমিতে সেচ দিয়ে পানি কমিয়ে তারপর ধান কাটার ব্যাবস্থা করছেন বলেও জানা যায়। সব কিছু মিলিয়ে এবার কৃষকের ব্যাপক লোকসানের আশঙ্কা করা হচ্ছে।

স্থানীয় কৃষক পরিমল আজকের নোয়াখালী‘কে জানান, তিনি এক কানি জমিতে ধান করেছেন। ধার-দেনা করে বদলা নিয়ে এবং নিজে পরিশ্রম করে লাভের আশায় অন্যের জমিতে বর্গা করেছেন তিনি। কিন্তু ঘুর্ণিঝড়ের সময় ভারি বর্ষনে তার ধানের জমিতে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এখন ধান তোলার সময় হয়েছে, কিন্তু জমিতে পানির কারনে ধান কাটা ও ঘরে তোলায় বেশ সমস্যায় পড়েছেন তিনি। পরিমলের মত আরো অনেকেই তাদের সমস্যা এবং লোকশানের শঙ্কার কথা জানিয়েছেন।

এবিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জানান, বিষয়টি উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষের নজরে নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

আরও সংবাদ……

সদর-সুবর্ণচরে চলছে ধান কাটার ধুম, হাসি নেই কৃষকের মুখে

শেয়ার করুন