সাংবাদিক নিয়োগঃ
আজকের নোয়াখালী শিক্ষানবীশ সাংবাদিক নিয়োগ - আগ্রহীরা সিভি পাঠিয়ে দিন আমাদের মেইলঃ ajkernoakhali2019@gmail.com এ
১২ বছরেও স্বীকৃতি পেলোনা নোবিপ্রবি ছাত্রলীগ :-

১২ বছরেও স্বীকৃতি পেলোনা নোবিপ্রবি ছাত্রলীগ :-

নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (নোবিপ্রবি) প্রতিষ্ঠাকাল থেকে আজ ১ যুগ পরও বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় ছাত্র সংগঠন “বাংলাদেশ ছাত্রলীগ” কে এই বিশ্ববিদ্যালয়ে স্বীকৃতি (কমিটি) দেয়া হয়নি। অথচ নতুন প্রতিষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয় এবং জেলা ছাত্রলীগের অধনস্থ প্রায় সব কলেজের ছাত্রলীগ শাখা কমিটির অধীনে থেকে সংঘবদ্ধ হয়ে সংগঠনের জন্য কাজ করার সুযোগ পাচ্ছেন।
কমিটি না থাকায় নোবিপ্রবি ছাত্রলীগ বিভিন্ন গ্রুপে ক্রমেই বিভক্ত হয়ে পড়ছে। বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা আশংকা করছেন, যদি এমনটি চলতে থাকে তাহলে একসময় স্থানীয় রাজনীতির বিভিন্ন ইউনিট বিশ্ববিদ্যালয়ে তাদের আধিপত্ব বিস্তারের সুয়োগ পাবে। কমিটি না থাকলে তারা এই সুযোগটি লুপে নেবে।এতে করে এই বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ গ্রুপিংয়ে বিভক্ত হয়ে সাংগঠনিক কার্যক্রম ধ্বংস হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে।
ছাত্রলীগের এই দুর্বলতা কাজে লাগিয়ে স্বাধীনতা বিরোধী রাজনৈতিক দলের ছাত্র সংগঠনগুলো ক্যাম্পাসে মাথাছাড়া দিয়ে উঠবে। যেমনটি অতীতেও এই বিশ্ববিদ্যালয়ে ঘটেছে।
সংগঠনের প্রতি ভালোবাসা এবং দ্বায়বদ্ধতা রেখেই নোবিপ্রবি ছাত্রলীগ রাজনৈতিক জনসভা, র্যালি, কেন্দ্র নির্দেশিত বিভিন্ন কর্মসূচি, হরতাল ও স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তির বিরুদ্ধে চলমান সব কার্যক্রমে অংশগ্রহন করে যাচ্ছে।
কিন্তু একটা প্রশ্ন থেকেই যায়। মেধাবী ছাত্রদেরকে নোবিপ্রবি ছাত্রলীগ শাখার মুলধারার রাজনীতিতে সক্রিয় অংশগ্রহন করার স্বীকৃতি কি আদৌ দেয়া হবেনা.?? যেমনটি বিগত ১২ বছরেও দেওয়া হয়নাই।
গতবছর ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের একটি প্রতিনিধি দল নোবিপ্রবি ক্যাম্পাসে এসে ছাত্রলীগের কমিটি দেয়ার আশ্বাস দিয়ে গেছেন। কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নোবিপ্রবিতে কমিটি দেয়ার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেই তা বাস্তবায়নের ঘোষনা দিয়ে যান। কিন্তু আজ বছর ঘুরে চলছে, নোবিপ্রবি ছাত্রলীগ কমিটি শুধু ঘোষনাতেই বারবার ঘুরপাক খাচ্ছে।
নোবিপ্রবি ছাত্রলীগকে যোগ্য নেতৃত্ব দিতে এবং স্থানীয় রাজনৈতিক কর্মসূচিতে নোবিপ্রবি ছাত্রলীগের শক্ত অবস্থান তথা “বাংলাদেশ ছাত্রলীগ” কতৃক ঘোষিত বঙ্গবন্ধুর নীতি ও আদর্শের সঠিক বাস্তবায়ন ঘটাতে নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের কমিটি দেয়ার কোন বিকল্প নেই।
ধারনা করা হচ্ছে, হয়তোবা কোন শক্তিশালী মহল নোবিপ্রবি ছাত্রলীগের কমিটি অবরুদ্ধ করে স্বীয় স্বার্থ হাসিল করতে চাইছে।
নোবিপ্রবি ছাত্রলীগের প্রাণের দাবী, সব অপশক্তিকে ধামাচাপা দিয়ে নোবিপ্রবি ছাত্রলীগের অভিবাবক জননেতা একরামুল করিম চৌধুরী এমপি এবং বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সংগ্রামী সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ এবং বিপ্লবী সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইনের নেতৃত্বাধীন কমিটি, নোবিপ্রবি শাখা ছাত্রলীগকে অচিরেই স্বীকৃতি দিয়ে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের চলমান কার্যক্রমকে আরো বেগবান করার সুযোগ করে দিবেন।

বিডিএক্সপ্রেস/সাজ্জাদ যোবায়ের:নোবিপ্রবি প্রতিনিধি

শেয়ার করুন