সাংবাদিক নিয়োগঃ
আজকের নোয়াখালী শিক্ষানবীশ সাংবাদিক নিয়োগ - আগ্রহীরা সিভি পাঠিয়ে দিন আমাদের মেইলঃ ajkernoakhali2019@gmail.com এ
কীট এবং আরটি-পিসিআর মেশিন হলেই কোরনা পরীক্ষা করা যাবে নোয়াখালীতেও

কীট এবং আরটি-পিসিআর মেশিন হলেই কোরনা পরীক্ষা করা যাবে নোয়াখালীতেও

আবদুর রহমানআজকের নোয়াখালী,  নিজস্ব প্রতিনিধি:

বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসের নির্মম ট্র্যাজেটিতে বাংলাদেশের প্রতিটি মানুষের মনে ভাইরাসের সংক্রমনের আতঙ্ক বিরাজ করছে। তারই ধারাবাহিকতায় বৃহত্তর নোয়াখালী লাখো লাখো মানুষ আতংকিত হয়ে আছে। কারন এই অঞ্চলগুলোতে প্রবাসী রয়েছে বেশি। তাই সংক্রামনের ও ঝুঁকি বেশি। এছাড়াও বৃহত্তর এই জেলাটির কোথাও সরকারি বা বেসরকারি পর্যায়ে নেই করোনা পরীক্ষার সুযোগ।
.
এমন পরিস্থিতিতে নোয়াখালীর একমাত্র মেডিকেল কলেজ আবদুল মালেক উকিল মেডিকেল কলেজে করোনা পরীক্ষার ল্যাব স্থাপনের দাবী জানান অত্র অঞ্চলের সাধারণ মানুষ। এই মেডিকেল কলেজটিতে রয়েছে অত্যাধুনিক মাইক্রোবায়োলজি ল্যাব ও অবকাঠামোগত সুবিধা, যা দেশের অনেক মেডিকেল কলেজেই নেই। করোনা ভাইরাস টেস্ট করার জন্য ল্যাবে যেই যেই জিনিস থাকার প্রয়োজন তার বেশিরভাগই আছে এখানে।
.
এখানে মাইক্রোবায়োলজি বিভাগে রয়েছেন ৩ জন সহকারী অধ্যাপক, ২ জন প্রভাষক এবং ভাইরোলজিতে উচ্চতর প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ২ জন বিএসসি মেডিকেল টেকনোলজিস্ট। অন্যান্য বিভাগে রয়েছে আরো ৪ ল্যাব টেকনোলজিস্ট। জেলা উপজেলা পর্যায়েও টেকনোলজিস্টদের পিসিআর প্রশিক্ষণ রয়েছে তাঁদেরকেও এখানে নিয়ে আসা যাবে পূর্ণাঙ্গ ল্যাব স্থাপিত হলে।
শুধুমাত্র আরটি-পিসিআর মেশিন ও কীটসহ কিছু ল্যাব সামগ্রী পেলেই করোনা পরীক্ষা করার জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত কলেজ কর্তৃপক্ষ।
কলেজের মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের প্রভাষক ডা. ফারজাহানা আক্তার আজকের নোয়াখাল’কে জানান- এখানে অত্যাধুনিক অনেক ইক্যুইপমেন্ট রয়েছে। বর্তমানে আরটি-পিসিআর মেশিন ও কীটসহ কিছু ল্যাব সামগ্রী স্থাপন করা গেলে দ্রুত করোনা রোগী সনাক্ত করা সম্ভব হবে। সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে ঢাকা এবং চট্টগ্রামের মাঝখানে বিস্তীর্ণ এলাকায় এধরণের ল্যাব নেই। এই কলেজে অবকাঠামোগত সুবিধা রয়েছে, তাই দ্রুত ল্যাব স্থাপন সম্ভব।
.
.
স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ (স্বাচিপ) নোয়াখালী’র সভাপতি জেলা ডা. ফজলে এলাহী খান আজকের নোয়াখাল’কে বলেন, আবদুল মালেক উকিল মেডিকেল কলেজ ফেনী এবং লক্ষ্মীপুর জেলার মধ্যবর্তী। এছাড়াও কুমিল্লার দক্ষিনাঞ্চল এবং চাঁদপুরের সাথে যোগাযোগ রয়েছে এই জেলার। প্রবাসী অধ্যুষিত হওয়ায় এই অঞ্চলে করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি বেশী। ইতেমধ্যে দেশের ১৭টি স্থানে করোনা সনাক্তকরণের জন্য ল্যাব স্থাপিত হয়েছে। এই মেডিকেল কলেজে দ্রুত আরটি-পিসিআর মেশিন ও কীটসহ প্রয়োজনী ল্যাব সামগ্রী সরবরাহ করলে আমরাও করোনা ভাইরাস পরিক্ষা করতে পারবো মূহুর্তের মধ্যে। একই সাথে তিনি পরীক্ষা উপকরণ দিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, স্বাস্থ্যমন্ত্রী এবং স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ডিজি মহোদয়ের প্রতি আবেদন জানান।
.
.
অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত) ডা. মাহফুজুর রহমান আজকের নোয়াখাল’কে  জানান, কলেজের মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের ল্যাবটি আধুনিক এবং পরিপূর্ণ জনবল রয়েছে। বর্তমান সময়ে করোনা সংক্রমনের ঝুঁকি বেড়ে যাওয়ায় করোনা সনাক্ত করণে পরীক্ষার জন্য কিছু মেশিনপত্র এবং কীটের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। তাহলেই ল্যাবটি পূর্ণাঙ্গতা পাবে এবং এই অঞ্চলের রোগীদের সেবা প্রদান করা হবে। সরকার ইতোমধ্যে বিভিন্ন মেডিকেল কলেজের ল্যাবে করোনা সনাক্তকরণের পরীক্ষা চালু করেছে। এখানেও এটি চালুর দাবী জানান তিনি।
.
.
এদিকে করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত বিষয়ে গতকাল মঙ্গলবার (৭ এপ্রিল) গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এসময় নোয়াখালীর জেলা প্রশাসক তন্ময় দাস ও সিভিল সার্জন মুমিনুর রহমান মাননীয় প্রধানমন্ত্রী’কে বলেন,   আমাদের বৃহত্তর নোয়াখালীতে একটি মেডিকেল কলেজ রয়েছে (আব্দুল মালেক উকিল মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল)। যাতে অত্যাধুনিক ল্যাব ও প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত ডাক্তারগন রয়েছেন। প্রবাসী প্রবণ এই জেলাটির মানুষের জন্য এইখানে করোনা পরীক্ষাকেন্দ্র স্থাপন করা খুবই প্রয়োজন।
.
এ নিয়ে নোয়াখালীর সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে স্থানীয় রাজনৈতিক ব্যাক্তিবর্গ সকলে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ফেসবুকে বিভিন্ন প্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন।
.
.

আমাদের ফেইজবুক পেইজ আজকের নোয়াখালী’তে লাইক দিয়ে সাথেই থাকুন…..

.

 

শেয়ার করুন